• মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৮:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

গাংনীর জোড়পুকুরিয়া হাইস্কুলের দুই শিক্ষকের পরোকীয়া ও বিয়ে

বিবর্তন প্রতিবেদক
Update : বুধবার, ১২ এপ্রিল, ২০২৩
গাংনীর জোড়পুকুরিয়া হাইস্কুলের দুই শিক্ষকের পরোকীয়া ও বিয়ে
গাংনীর জোড়পুকুরিয়া হাইস্কুলের দুই শিক্ষকের পরোকীয়া ও বিয়ে

দীর্ঘদিন একই প্রতিষ্ঠানে চাকরী করাকালীণ সময়ে প্রেম পরোকীয়া ও বিয়ে নিয়ে রসাত্বক আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিনত হয়েছেন মেহেরপুরের গাংনীর জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নুসরাত সুলতানা ও সহকারী ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল হান্নান। বিষয়টি যেমন এলাকায় মুখোরোচক কাহিনীর সৃষ্টি করেছে তেমনি ভাবমূর্তিও ক্ষুন্ন হয়েছে প্রতিষ্ঠানের। তবে শিক্ষক আব্দুল হান্নান বলেছেন বিয়ে করা কোন অন্যায় নয়।
জানা গেছে, আব্দুল হান্নানের বাড়ি জোড়পুকুরিয়া গ্রামে এবং একই গ্রামের প্রভাষক জাবলুন নবীর স্ত্রী নুসরাত সুলতানা। হান্নান ও নুসরাত চাকরীর সুবাদে একই সাথে বিদ্যালয়ে যাতায়াতসহ যে কোন প্রশিক্ষণ কিংবা অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করতো দুজনে। এভাবে দুজনের মধ্যে প্রেম পরোকীয়ার সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে দুজনেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয় এবং কয়েকমাস আগে নুসরাত তার স্বামিকে ডিভোর্স দিয়ে বিয়ে করে বিষয়টি গোপন রাখেন। সেই সাথে গাংনী শহরে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতে শুরু করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। দুজনের গতিবিধি ও আচরণ সন্দেজনক হওয়ায় ধরে পড়ে বিয়ের কথা স্বীকার করে তারা।
গত কয়েক দিন আগে প্রচার হওয়ার পর থেকে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ দেখা গেলেও নিরব রয়েছে প্রধান শিক্ষক হাসান আল নূরাণী।

জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নুসরাত সুলতানা ও সহকারী ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল হান্নান

জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নুসরাত সুলতানা ও সহকারী ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল হান্নান

মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষকরা যখন বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদেও শিক্ষা দেওয়ার বিপরীতে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন। ঘর সংসার ছেড়ে আবারো বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন এমন নৈতিক অবক্ষয়ের ঘটনায়ও বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় সমালোচনার জন্ম দিয়েছে এলাকায়। চায়ের দোকান থেকে শুরু বিভিন্ন পাড়ামহল্লার গল্পের প্রধান শিরোনাম এখন দুই সহকারী শিক্ষকের পরকীয়া প্রেম অতঃপর বিয়ে।
শিক্ষক আব্দুল হান্নানের স্ত্রীসহ এলাকাবাসী জানায়, হান্নান ছেলে হিসেবে অনেক ভালো। তাকে অনেকটা ব্ল্যাকমেইল করেছেন নুসরাত ম্যাডাম। শুধু হান্নানই নয়, স্বামী রেখে একাধিক পরকীয়া জড়িয়েছেন এই ম্যাডাম। বিদ্যালয়ের আরো রাঘব বোয়াল এর সঙ্গে জড়িত রয়েছে। তারা পরকীয়ার শেষে ফাঁসিয়ে দিয়ে গেছেন হান্নানকে। ওই ম্যাডাম বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক ও এলাকার এক প্রভাবশালীর সাথে গোপন সম্পর্ক গড়ে তোলে। তাদের সাথে টেক্কা দিতে না পেরে অবশেষে হান্নানকে শিকার করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রামের অনেকেই জানান, হান্নানের বর্তমানে তিন স্ত্রী। প্রথম স্ত্রীকে রেখে কুঞ্জুনগর গ্রামে বিয়ে করেন। সেই স্ত্রীর একটি পুত্র সন্তানও রয়েছে। এরই মাঝে পরোকীয়ায় মজে সহকর্মীকে বিয়ে করলেন তিনি। এবিষয়ে জানতে চাইলে ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল হান্নান বিয়ে করার কথা স্কীকার করে বলেন বিয়ে করা অপরাধ কি। দুজন শিক্ষক ঘর সংসার রেখে পরকিয়া প্রেমের মাধ্যমে বিয়ের ঘটনায় শিক্ষার্থীরা কি শিক্ষা নেবে এমন প্রশ্নের জবাব দিতে পারেননি তিনি।
এব্যাপারে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক হাসান আল নুরানী জানান, বিষয়টি ওই দুই শিক্ষকের ব্যক্তিগত ও রুচির ব্যাপার। এতে কোন কিছু করার নেই বিদ্যালয়ের।
বিদ্যালয়ের সভাপতি গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাজিয়া সিদ্দিকা সেতু জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। কেউ অভিযোগ করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category