• শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন

নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে গাইবান্ধা উপনির্বাচন: সিইসি

বিবর্তন ডেস্ক / ৯৩ Time View
Update : বুধবার, ১২ অক্টোবর, ২০২২
নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে গাইবান্ধা উপনির্বাচন: সিইসি
নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে গাইবান্ধা উপনির্বাচন: সিইসি

গাইবান্ধা-৫ আসনের সংসদীয় উপ-নির্বাচন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি বলেন, আইন ভঙ্গ করে গোপন কক্ষে প্রবেশ করে ভোট দিয়ে দিতে আমরা স্বচক্ষে দেখেছি। ১৪৫ ভোট কেন্দ্রের ৪৪টি ভোট কেন্দ্রে এই পরিস্থিতি।

বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে গাইবান্ধা-৫ আসনের ভোট পর্যবেক্ষণের মনিটরিং সেলে বসে সিইসি এ মন্তব্য করেন।

গত জুলাইয়ে সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার মৃত্যুতে এ আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে গাইবান্ধার এই ভোট পুরোপুরি স্থগিত করবেন কি না সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন।

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, মূল অ্যাকশন হিসেবে আমরা কেন্দ্র বন্ধ করেছি। এখন চাকরি বিধি অনুযায়ী বা অন্য বিধি অনুযায়ী কী অ্যাকশন নেবো তা পরবর্তীতে দেখবো। আমরা টেলিফোনে এসপি, ডিসি, রিটার্নিং অফিসারকে বলেছি, যে আমরা এখান থেকে সিসি ক্যামেরায় দেখতে পেয়েছি। তাই সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ করে দিয়েছি। আমরা সিদ্ধান্ত নেব যে কমিশন যদি মনে করে নির্বাচন সঠিক ভাবে হচ্ছে না তাহলে কমিশন নির্বাচন বন্ধ করতে পারে। আমরা সেই আলোকে সিদ্ধান্ত নিচ্ছি এবং চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত যখন নেব, তখন জানাবো।’

নিয়ন্ত্রণের বাইরে কেন চলে গেল তা আমরা বলতে পারবো না জানিয়ে তিনি বলেন,’ আমরা দেখতে পাচ্ছি যে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে অনেকটাই। আপনারাও দেখতে পেয়েছেন যে গোপন কক্ষে হচ্ছে, এবং সুশৃঙ্খলভাবে হচ্ছে না। কেন হচ্ছে এমন তা চটজলদি বলতে পারবো না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঠিকমত কাজ করছে কি না, তা আমরা এই মুহূর্তে বলতে পারছি না। ইভিএমেরও কোনো ত্রুটি দেখতে পাচ্ছি না। ওই যে মানবিক আচরণ, আরেকজন ঢুকে যাচ্ছে, দেখিয়ে দিচ্ছে। আবার অনেকেই দেখছি গেঞ্জি পড়ে, শাড়ি পড়ে যেখানে প্রতীক আছে দেখা যাচ্ছে তারা আচরণ বিধি লঙ্ঘন হচ্ছে এবং এটা সুশৃঙ্খল নির্বাচনের পরিপন্থী। এরাই ডাকাত, এরাই দুর্বৃত্ত। যারাই আইন মানছেন না তাদেরকেই আমরা ডাকাত দুর্বৃত্ত বলতে পারি। কারণ আইনের প্রতি সকলকে শ্রদ্ধা করতে হবে। সকলে যদি আইন না মানি নির্বাচন কমিশন এখানে বসে সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারবে না।’

সিইসি বলেন, তিন লাখ ৩৯ হাজার ৭৪৩ জন ভোটার ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ইভিএমের মাধ্যমে আজ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা রয়েছে। জেলার সাঘাটা উপজেলার ১০টি ও ফুলছড়ি উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন নিয়ে সংসদীয় আসনটি গঠিত। নির্বাচনী এলাকার ১৪৫টি ভোটকেন্দ্রের অভ্যন্তরে ২টি এবং প্রতিটি ভোটকক্ষের ভিতর (গোপন বুথের দৃশ্য ব্যতীত) ৯৫২টি সব মিলিয়ে ১ হাজার ২৪২টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category